my experience

আড়িপাতা

এই কৌতুহলী বিষয়টা বাচ্চা ছেলেদের কাছে একেবারেই অজানা কিন্তু আমরা বড়োরা এই ব্যাপারে বেশ ওস্তাদ | একজন মেয়ে হয়ে এটুকু বলতে পারি সময়ে-অসময়ে এই ব্যাপারটা কাজেও লাগে | তবে কখনো ভালো কাজে আবার কখনো খারাপ মানে ঝগড়ার কারণ হিসাবে | আর শুধু তুচ্ছ ব্যাপার কেন, দেশের নানা গুরুত্বপূর্ণ কাজেও এই “আড়িপাতা” কাজটা ব্যবহার করা হয়ে থাকে |

তবে আমি এখন অত কঠিন বিষয়ে আলোচনা করছি না |প্রবাস স্থলে মানে আমেরিকায় সম্প্রতি এক পূজা মণ্ডপে যখন অনেক মেয়ের জমায়েত হয়েছিল আর শান্ত,কৌতুহলী “আমি” তখন বেশ কিছু কথা পাশ থেকে শোনার চেষ্টা করেছিল | তাতে যে সব কথাগুলো শুনতে পেয়েছি সেগুলো জানাতে খুব লোভ লাগছে , তবে জানিনা সেগুলো কতটা সত্যি | আপনারাও পড়ুন আর বিচার করুন আর হ্যাঁ, সবই মেয়েদের কথা কিন্তু …

জনৈকা কিশোরী তার বন্ধুনীকে – ” জানিস আমি না কোনোদিন কোনো ছেলের দিকে তাকাই ই নি | অন্য সবাই কি যে দেখে !” ( সত্যি কি?)

এক মধ্যবয়সিনী তার পাশের জনকে -” ঠাকুরের কাছে এসেছি ভক্তি নিয়ে পূজা দিতে , কোনো কিছু চাওয়া, মানসিক করা আমার স্বভাবে নেই “| ( সত্যি কি ?)

জনৈকা চাকুরিরতা তার সঙ্গিনীকে -” আর বলিস না , কি যে কাজের চাপ | আজ তো জোর করে ছুটি নিয়েছি | তবে ভালো লাগে কাজ জানিস, পরিশ্রমের উপার্জন | রাতারাতি বড়োলোক হতে আমার ভালো লাগে না |” ( সত্যি কি ?)

নতুন বিবাহিত এক কন্যা তার বন্ধুনীকে -” বিয়ের আগেও আমার এক জনের সাথে রিলেশন ছিল , ব্রেক আপ হয়ে যায় |তারপর আর আমার সাথে ওর কোনো যোগাযগ নেই | এমনকি কোনোদিন ওর ফেসবুক পেজ ও খুলে দেখিনি |” ( সত্যি কি ?)

জনৈকা মধ্য বয়সিনী তার সাথীকে – ” জানিস পূর্বার ছেলের তো ডিভোর্স হয়ে গেছে | এর থেকে বেশি কিছু জানি না | আমার না আসলে কারো পিছনে কোনো কথা বলতে ভালো লাগে না |” ( সত্যি কি ?)

এক হাসিখুশি পুজোর উদ্যোক্তা মহিলা পাশের জনকে -” আজকের দিনটা উৎরে গেলেই হলো | কালকেরটা কাল দেখা যাবে | আমি বর্তমান নিয়ে চলি, অত ভবিষৎ ভাবি না |” ( সত্যি কি ?)

জনৈকা সাজগোজে পটু কিশোরী তার বন্ধুকে – ” ইস, দেখ , সামনের মেয়েটা কেমন নাকে হাত দিলো | আমি জীবনে ওরকম করিনি আর করবো ও না |” ( সত্যি কি?)

এক ফেসবুক আসক্তিনি তার সঙ্গীকে -” আমি যে ফটো গুলোই আপলোড করি সেগুলোতেই অনেক লাইক পাই | অনেকে আছে বেশি লাইক না পড়লে সেই ফটো ডিলিট করে দেয় | কিন্তু আমি কখনো করিনি |” ( সত্যি কি ?)

এক আলোচনাকারিনী তার পাশের জনকে-” আমাদের ভারতে যে স্বচ্ছ অভিযান হচ্ছে সেটা বেশ ভালো বল | কিছুদিনের মধ্যেই বিদেশের মতো রাস্তা ঘাট ঝকঝকে হয়ে যাবে | লোকে যা খুশি রাস্তায় ফেলে, আমি ওখানে থাকতে কখনো একটা কিছু ফেলিনি |”( সত্যি কি ?)

এক সুন্দরী গরবিনী তার সাথীকে -” লোকে তো ফিগার ঠিক রাখতে কত এক্সারসাইজ , ডায়েট কন্ট্রোল, কত কিছু করে | আমি কিচ্ছু করিনা | ” ( সত্যি কি ?)

এক সাধারণ মেয়ে তার বন্ধুকে -” দেখ ওই মেয়েটা বেশ দেখতে , নাহ | আমার অবশ্য কাউকে দেখে তেমন হিংসা হয়না | যে যার মতো দেখতে , কি বলিস ?|” ( সত্যি কি ?)

নতুন আমেরিকায় আসা এক বিবাহিতা তার সঙ্গীকে -” এই কদিনে ইংলিশ বলে বেশ প্র্যাক্টিস হয়ে গেছে | আজকে এখানে বাংলায় কথা বলতে কেমন কেমন লাগছে |” ( সত্যি কি ?)

এক মধ্যবয়সিনী তার পাশের জনকে – ” এখানে তো শীতকালে স্নান করতে কোনো কষ্টই নেই | কলকাতাতেও অবশ্য আমি কোনোদিন স্নান না করে থাকিনি এ জীবনে, এমনকি শীতেও না |” ( সত্যি কি ?)

এক মহিলা তার বন্ধুনীকে-” ফটো তুলছিস তো খুব , ফেসবুকে দেবার সময় এডিট করে দিস কিন্তু| যদিও আমি কোনোদিন করিনি এডিট , শুধু উপদেশ দিচ্ছি | আর কারো উপদেশ আমি খুব মেনে চলি |” ( সত্যি কি ?)

আমি – মনে মনে ,” অন্যের কথা লুকিয়ে শুনতে আমার ভালো লাগে না , কি হবে শুনে !” |( সত্যি কি ?)
বিচারের ভার আপনাদের, আগেই বলেছি |

Tagged , ,

About Antara Samanta

Myself is Antara Samanta, a wanna be writer in homemaking style with an idea to embrace the indifference in a classy dynamic way. Antara is passionate about reading,singing and writing-in that way.
View all posts by Antara Samanta →