fashion

হাতব্যাগ আর তুমি

আমরা আধুনিক কালের মেয়েরা সর্বদাই একটা পারফেক্ট লুকের কথা ভাবি, তাই শুধু পোশাক না , চুল , হাতব্যাগ , জুতো , চশমা সবকিছুই যেন মানানসই হয় সেব্যাপারে বেশ যত্ন নিই । কিন্তু জানো কি , হাতব্যাগ কিনতে হলে আমাদের জেনে নেয়া উচিত আমাদের চেহারা বা ফিগার ঠিক কি রকম । মানে আমাদের কি আপেল ফিগার না পিয়ার্স ফিগার ইত্যাদি । এইসব দেখে , বুঝেশুনে ব্যাগ কিনলে তবেই আমাদের ফ্যাশন সেন্সের রেটিং বাড়বে ।

আচ্ছা , প্রথমেই চলো জেনে নিই এই ফিগার গুলো ঠিক কি কি আর কোনটি কেমন ।

১) যদি তোমার কোমরের নিচের অংশের থেকে শরীরের উপরের অংশ মানে কাঁধ খুবই বেশি চওড়া হয় তবে তাকে বলে ” ইনভার্টেড ট্রায়াঙ্গেল ” ফিগার যা দেখতে অনেকটা উল্টানো ত্রিভুজের মতো ।

২) যদি তোমার শরীরের উপরের অংশ-কাঁধ আর কোমর , কোমরের নিচের অংশের থেকে কম চওড়া হয় তবে তাকে বলে ” পিয়ার্স ফিগার ” যা দেখতে অনেকটা নাস্পাতির মতো ।

৩) যদি তোমার শরীরের কাঁধ , কোমর আর নিচের অংশ কমবেশি সমান সমান হয় তবে তোমার চেহারা হলো ” রেকট্যাংগেল ” ধরণের যা দেখতে লাগে আয়তাকার ।

৪)যদি তোমার কোমরের অংশ , তোমার কাঁধ আর নিতম্বের থেকে বেশি ভারী হয় তবে তোমার ” আপেল ফিগার ” যা দেখতে অনেকটা আপেলের মতো ।

৫) যদি তোমার কাঁধ আর শরীরের নিচের অংশ , সমান সমান আর এই দুটির মাঝে সরু কোমর থাকে তবে তোমার ” আওয়ার গ্লাস ফিগার ” আর এটি হলো পারফেক্ট ফিগার ।

এখন জানি এস কোন ফিগারে কোন ব্যাগ কিনবে……………..

১) ইনভার্টেড ট্রাইএঙ্গেল ফিগার

যেহেতু শরীরের উপরের অংশ এখানে খুব চওড়া থাকে তাই কোনো বড়ো ব্যাগ যা কাঁধে ঝোলানো থাকে তা একেবারেই কিনবে না । এখানে তোমাদের কিনতে হবে লম্বা স্ট্র্যাপ দেয়া ব্যাগ যা কোমরের নিচের অংশ পর্যন্ত ঝুলবে । এতে একটা ব্যালান্সড লুক হবে । তাই ক্রসবডি ব্যাগ , বেল্ট ব্যাগ , ক্লাচ , লম্বা ঝোলানো হ্যান্ড ব্যাগ এইসব কিনলে খুব ভালো হবে ।

২) পিয়ার্স ফিগার

এক্ষেত্রে খুব বড়ো কোনো ব্যাগ যা কোমরের নিচ পর্যন্ত ঝোলানো তা একেবারেই কিনবে না । কাঁধ আর বুকের কাছাকাছি থাকে এরকম ব্যাগ নেবার চেষ্টা করো । এতে চেহারার খুঁত ঢেকে যাবে । তোমাকে ব্যাগের স্ট্রাপলেঙ্গথ নিয়ে একটু খেয়াল রেখো তাহলেই হবে , তা যেন কোনোভাবেই কোমরের নিচে না আসে । তাই কিনতে পারো শোল্ডার ব্যাগ -বড়ো হলেও ভালো , কিনো বাকেট ব্যাগ ।

৩) রেক্ট্যাঙ্গুলার বা আয়তকার ফিগার

তোমার শরীরে একটু ব্যাঙ্ক দেখাতে পারলে মন্দ লাগবে না । তাই এক্ষেত্রে কোন শেপের ব্যাগ নেবে আর কোন মেটেরিয়ালের নেবে দুটোই খুব গুরুত্বপূর্ণ । ব্যাগের স্ট্রাপের মাপ ও এমন হবে যা তোমার কোমর ছুঁয়ে থাকবে । বিশেষ করে আয়তকার ধরণের ব্যাগ একেবারেই নেবে না । কি নেবে ? নিতে হবে নরম চামড়ার অথবা কাপড়ের টোটে ব্যাগ , স্যাচেল ব্যাগ আর হোবো ।

৪) আপেল ফিগার

এক্ষেত্রে তোমার ফিগারকে এমনভাবে সাজাতে হবে যাতে লোকে ধোঁকা খায় । একটা এমন ব্যাগ নিতে হবে যাতে চেহারার খুঁত ঢেকে যায় । তাই ছোট ব্যাগ , কম লম্বা স্ট্র্যাপ , নরম জিনিসের ব্যাগ একেবারেই নেবে না । নিতে হবে বড়ো টোটে ব্যাগ , উপরে হ্যান্ডেল থাকা ব্যাগ আর শক্ত জিনিস দিয়ে তৈরী ব্যাগ । এই ধরণের ব্যাগ তোমার ব্যক্তিত্ব আরো বাড়িয়ে দেবে ।

৫) আওর গ্লাস ফিগার

এই ধরণের চেহারা বেশ যথাযথ , প্রায় সব কিছুই নেয়া যায় তবে এমন কিছু ব্যাগ নিতে হবে যাতে চেহারার সৌন্দর্য্য ঢেকে না যায় । তাই কোনো সাধারণ ব্যাগ আর সুন্দর ছোটোখাটো ক্লাচ ব্যাগ এই দুটির মধ্যে যেটা তোমার পোশাকের সাথে মানানসই সেটা বেছে নাও ।

জানলে তো ব্যাগ নিয়ে ? এবার আর চোখের সামনে ব্যাগ দেখে যেটা পছন্দ হলো সেটাই না কিনে একটু চিন্তাভাবনা করে কিনো , ঠিক আছে ?

About Antara Samanta

Myself is Antara Samanta, a wanna be writer in homemaking style with an idea to embrace the indifference in a classy dynamic way. Antara is passionate about reading,singing and writing-in that way.
View all posts by Antara Samanta →