useful things

মানুষ চেনা দায়

সত্যি ই যে কোন মানুষ কেমন সেটা বোঝা খুবই দুরূহ ব্যাপার যতদিন না তার সাথে বেশি বেশি মিশে তাকে ভালোভাবে বোঝা যায় | তাই বা কি,অনেকসময় এমনও হয় যে অনেক দিনের চেনা মানুষের কাছ থেকে আমরা এমন অপ্রত্যাশিত ব্যবহার পাই যে স্বগতোক্তি করেই ফেলি, ” মানুষ চেনা দায় “|
তবুও আমরা মানুষরা আশা ছাড়ি না | ট্রেনে পাশে বসা নতুন কেউ কিংবা রেস্টুরেন্টে খেতে আসা অন্যজনকে দেখে বোঝার চেষ্টা করেই থাকি যে সে কি রকম ধরণের মানুষ হতে পারে | অন্তর্মুখী চরিত্রের আমি চুপচাপ মানুষ চেনার কাজ বেশি ই করে থাকি ,আমার এটা অন্যতম কৌতুহলের বিষয় | কখনো লোকজনের দিকে সোজাসুজি তাকিয়ে কখনো বা অপাঙ্গে | আর সে গুলো করতে করতে বুঝেছি কোন কোন বিষয়ে সহজভাবে মানুষের চরিত্র, তার পছন্দ-অপছন্দ নিয়ে ধারণা করা যায় | আচ্ছা, বলছি সেগুলো..

১) বাসেতে পাশে বসা লোকটি কানে হেডফোনে গান শুনছে, আড়চোখে দেখে নিন তার মোবাইলের প্লেলিস্ট , রোমান্টিক, দুঃখের নাকি ইংলিশ গান কি শুনছে সে | এতে খানিকটা জানতে পারবেন তার পছন্দ নিয়ে |
২) হয়তো কোনো বন্ধুর সাথে মানুষটি , কথায় কথায় হাসছে নাকি গম্ভীর ভাবে রয়েছে তার মুখের ভাবভঙ্গি এটা দেখেও আন্দাজ করা যাবে মানুষটি কেমন |
৩) রাস্তা দিয়ে যেতে দেখলাম দুজনের মধ্যে তুমুল বাগ-বিতন্ডা হচ্ছে | থেমে গিয়ে লক্ষ্য করি এই তর্কের আঁচ কে কেমন সামাল দিচ্ছে | কেউ চুপচাপ হাসি মুখে কেউ বা বিচ্ছিরি রকমের হাত পা নেড়ে | হাসি মুখে সামলানোর মানুষটার মনের জোর বেশি সেই জিতবে খেয়াল করে দেখুন |
৪) মানুষের সাথে কথা বলা অন্য মানুষদের গলার স্বর, আওয়াজের উচ্চতা, ভাষার ধরণ এসব খেয়াল করলেও বোঝা যায় মানুষটির স্বভাব মার্জিত রুচির নাকি একেবারেই গেঁয়ো|
৫) কারোর সাথে কারোর মতের মিল হচ্ছে না আর মতের অমিল হলে যে কোনো মানুষ ই রিয়াক্ট করেন| এখন এই প্রতিক্রিয়াটা কে কেমন করে সেটা দেখে সহজেই বোঝা যায় মানুষের ধরণ | সে উদারমনা নাকি আদেশ করতেই ভালো বাসেন |
৬) পরিচিত জন কেও বোঝার চেষ্টা করতে পারা যায় সে সমালোচনা কেমন ভাবে নিচ্ছে , সাফল্য বা ব্যর্থতাকে কতটা আস্কারা দিয়ে মাথায় তুলছে অথবা যখন প্ল্যান করা কোনো জিনিস যদি ঠিক মতো নাহয় তখন মনের অবস্থা কেমন থাকে |
৭) কোনো মানুষ যদি সহজেই নিজের ভুল বুঝে ক্ষমা চায় সে নিশ্চিতভাবে “মানুষ” পদবাচ্য |
৮) কোনজন হয়তো নিজের ভালোর সাথে সাথে আরো সকলের ও ভালো চায় | তাই বন্ধুদের , ভাই-বোনদের উৎসাহ করতেও পিছপা হয় না | তখনি বোঝা যায় সে কতটা উদারমনা |
৯) আবার এমন কোনো বন্ধুকেও খুঁজে পাওয়া যাবে যার থেকে এক নম্বর কেউ বেশি পেলেই সে সহ্য করতে পারে না | তার থেকে দক্ষ কেউ আছে এমন কাউকে কোনো কোনো সহকর্মী দুচোখে দেখতে পারে না | এসবই প্রতিযোগিতামূলক মনের পরিচয় |
১০) কোনো অপরিচিত কাছে হয়তো কিছু জানতে চাইলেন , কেউ জানি না বলে পাশ কাটিয়ে চলে যায় আবার কেউ বা আপনাকে সাহায্য করার জন্য দাঁড়িয়ে পরবে| হয়তো সে ও জানে না কিন্তু যেন তেন প্রকারে আপনাকে অসহায় অবস্থায় ছেড়ে যাবে না | এতে বোঝাই যায় তার পরোপকারী মনোভাব কেমন |
১১) রেস্টুরেন্টে গিয়ে দেখুন ওয়েটারদের সাথে কে কেমন ব্যবহার করছে , সব্জিওয়ালাদের সাথে কে কেমন কথা বলছে বা দরদাম করছে তাতেও বোঝা যায় মানুষটি কেমন হতে পারে | নিজেকে সে কেউকেটা ভাবে নাকি অন্যকেও মানুষ হিসাবে গুরুত্ব দেয় তা আন্দাজ করা যায় | কৃপণতা আছে নাকি খরচ করতে জানে সেটা নিয়েও কিছুটা ধারণা পাওয়া যায় |
১২) কোনো মানুষ বাড়ির কাছের মানুষজনের সাথে কেমন ব্যবহার করছে , তাদের কতটা গুরুত্ব দিচ্ছে , নিজের থেকেও বেশি না কম এসব দেখেও তার সম্পর্কে বোঝা যায় সে কতটা যত্নবান |
১৩) রাস্তায় পশু-পাখি দেখে অনেকে তাদেরকে কিছু খেতে দেয় তো অনেকে জ্বালাতন করতে ভালোবাসে আবার অনেকে অত্যাচার করে | অসহায় প্রাণীর প্রতি মানুষদের আচরণ তাদের স্বভাবের একটা দিক খুলে দেয় |
১৪) আলাপচারিতায় যদি কোনো নতুন মানুষের কাছে জানার চেষ্টা করা যায় তার শখ , স্বপ্ন , অবসর কাটানোর প্রিয় বিষয় এসব নিয়ে তো কিছুটা হলেও তাদের বোঝা যায় | যেমন কেউ হয়তো গান শুনতে ভালোবাসেন সে হয়তো শিল্পী প্রকৃতির , গাছপালা ভালোবাসেন এমন জন প্রকৃতিকে আপন করে নিয়েছে আর সে হয়তো খুবই নরম মনের মানুষ |
১৫) শেষ যেটা বলছি সেটা আমায় খুব টানে আর তা হলো কোনো মানুষের হাস্যরস | খোলাভাবে বললে কেউ কাউকে কতটা হাসাতে পারে সেই দক্ষতা| হয়তো সে খুবই গম্ভীর কিন্তু তার কথা বলার ধরণ এমন হাস্যমিশ্রিত থাকে তাতে কোনো সাধারণ বিষয় ও অসাধারণ শুনতে লাগে | অতিবড়ো চিন্তাশীল মানুষ ও চিন্তা ভুলে যায় তাদের কথার ধাক্কায় | তাদের এই গুন অন্য সবার থেকে আলাদা করে চিনিয়ে দেয় যে তারা কতটা খোলামনের |

About Antara Samanta

Myself is Antara Samanta, a wanna be writer in homemaking style with an idea to embrace the indifference in a classy dynamic way. Antara is passionate about reading,singing and writing-in that way.
View all posts by Antara Samanta →