useful things

মনস্তাত্বিক কাঁটা …

মানুষের মন খুবই জটিল জিনিস | আশে পাশের লোকজনদের দেখে কিছু ব্যাপার লক্ষ্য করেছি যেগুলোতে সাধারণত মানুষ খুবই তাড়াতাড়ি প্রতিক্রিয়া করে ফেলে নিজেরই অজান্তে | তোমরাও হয়তো দেখে থাকতে পারো | দেখা যাক সেগুলো মেলে কি না …

১) নিরবতা- কর্মচঞ্চল মানুষ এটাকে ঠিক আয়ত্তে আনতে পারে না | সে সবসময়ই চায় তার কথাই শুনুক অন্যজন | তাই বকবক করা মানুষের উল্টোদিকে যদি কেউ কোনো উত্তর না দিয়ে নীরব থাকে, অন্যজন ততটাই অধৈর্য্য হয়ে ওঠে | এই ব্যাপারটা কাজে লাগাতে পারা যায় কোথাও কেনাকাটা করতে গেলে যেখানে দরদাম করার ব্যাপার থাকে সেখানে | ধরুন সেলসম্যান তোমাকে অনেক্ষন বোঝালো, আর তুমিও বোঝার ভান করে চুপ করে ওর কথা শুনে চললে , শেষে তুমি নিজের মতো দর বলে আবার চুপ করে রইলে | এবার দেখুন তার মনের উপর কেমন ঝড় বয়ে চলে | তার দোলাচলে তোমার লাভ যে ষোলোআনা বলা বাহুল্য |

২) মুখঢাকা – ব্যাপারটার আমি এমনই নাম দিয়েছি| ঠিক বোঝা গেলো না, নাহ? বিস্তারে বলছি | যখন কারো কাছ থেকে টাকা নিয়ে জিনিস কিনতে চাইবে তা সে মা-বাবা ই হোক বা অন্য কেউ , তাকে তখন জিনিস তা নিয়ে খুব বাড়িয়ে বলবে | জিনিসটা কত ভালো , পেলে নিজের কত উপকার হবে এইসব আর এর সাথে সাথে বাড়িয়ে দেবে দামটাও | সবকিছু শুনে তাদের চোখ যখন উল্টে যাবার জোগাড় তখনি বলবে আসল দামটা | আর সেটা বলতে হবে এমন ভাবে যে জিনিষটা খুবই ডিসকাউন্ট এ পাচ্ছ সেটা বোঝায় | ব্যস. কেল্লা ফতে | চুপি চুপি বলে রাখি আমি এটার ব্যাপারে সিদ্ধহস্ত | কিছু মনে করোনা |

৩) তীব্রতা কমানো – সামনের মানুষ খুব ঝগড়া করার মতিতে রয়েছে আর উত্তেজিত হয়ে খুব চিৎকার করছে | কি করে তাকে ঠান্ডা করা যায়? না, কোনো তর্ক না কারণ সেইসময় তর্ক শুরু করলে বিশৃক্ষলা বাড়বে বই কমবে না | আবার কিছু না বললেও সে আরো চেঁচাতে থাকবে | তাই তখন ধৈর্য্য ধরে তার কথার উত্তরে বলতে হবে খুবই নিচু স্বরে যাতে শুধুমাত্র সেই শুনতে পায় | একমিনিটের মধ্যেই ফল পাবেন কারণ সেও তখন কথা বলা শুরু করবে নিচু তারে| তবে ঝগড়া কখন থামবে সেটা বলতে পারছি না | শুধু পরিস্থিতি ঠান্ডা হবে, এই আর কি | আর এটাই বা কম কি ? করে দেখতে পারো ..

৪) গাদা করা – এটা একটা বিশুদ্ধ মজা তবে শুধু বন্ধুদের সাথে করলেই বেশি ভালো | কখনো কোনো বন্ধুর সাথে শপিং মল যাওয়া হলো | তারপর তার সাথে অনেক গল্প, কথা বকবক করা হলো অবশ্যই তার চোখে চোখ রেখে রেখে যাতে তার মনটা অন্যদিকে না ঘুরে যায় |তোমার কিছুই কেনার ছিল না শুধু তাকে সঙ্গে দিতে এসেছিলে আর সেই খুশিতে সেও বাজার করছে গল্প করতে করতে | কি কি দরকার সে কিনছে আর তুমিও যা যা পাচ্ছ তার কার্ট এ রেখে দিচ্ছ | এমনি করে বেশ কিছুক্ষন কাটানোর পর বিল করতে গিয়ে বন্ধুর চোখ চড়কগাছ ,” কি করে এতো এতো জিনিস হলো ?”..হাহাহা করে হেসে নিয়ে একটু

About Antara Samanta

Myself is Antara Samanta, a wanna be writer in homemaking style with an idea to embrace the indifference in a classy dynamic way. Antara is passionate about reading,singing and writing-in that way.
View all posts by Antara Samanta →