a thought, mythology

ঠিক কি না

পুরাতন আর নতুন নিয়ে চর্চা প্রথম করছি না , সত্যি বলতে কি করতে-লিখতে হাতটা উসখুস করছে তাই এটা নিয়ে লিখেই ফেললাম । তবে খুব বেশি পুরাতন নিয়ে বলবো না , একেবারেই স্মৃতিতে টাটকা যে দিনগুলো সেগুলো নিয়েই তফাৎটা করছি । আর এখনের মধ্যে পরছে সেই ফ্যামিলি পিকনিক যেটা আসলে ফ্যামিলি সেলফি উৎসব , রয়েছে শব্দ ও কখন ইমোজি , স্টিকারের মধ্যে দিয়ে বেপাত্তা হয়ে গেছে তার খোঁজ ।

পোস্ট

ডাকপোস্টের কথা অতীত , এখন পোস্ট মানে ফেসবুক , ইনস্টাগ্রামে পোস্ট । এই দশ বছর আগেও যে ছবিটা এঁকে নিজের বেশ আনন্দ হতো , এখন সেই ছবিটা এঁকে যদি ঐসব জায়গায় পোস্ট ই না করতে পারলাম তবে যেন মনে হয় আঁকাটা সত্যিই করিনি , কাল্পনিক ছিল । আবার আঁকা ছবিটার সাথে গালে-হাতে রং মাখা নিজের সেলফি থাকলে মন্দ হয়না ।ঠিক কি না ?

কন্ট্রোল

কে কার অধীনে ? দশ বছর আগেও আমাদের কাছে ফোন ছিল একটা জরুরি ব্যাপারের জন্য ই শুধু । তাই আমরা নিজেদের ইচ্ছামতো ফোন নিয়ে নাড়াচাড়া করতাম । কিন্তু এখন শুধু ফোন না তার আনুষঙ্গিক অন্য সব যেমন স্মার্ট ওয়াচ ইত্যাদি আমাদের যেন কান ধরে ওঠাবসা করায় । কি খেলে , কোথায় গেলে , কখন ঘুমালে, কখন উঠলের নজরদারিতে আমরা নিজেদের অজান্তেই বন্দী । ঠিক কি না ?

প্রকৃতি

দশ বছর আগেও আমরা প্রকৃতির জন্যই প্রকৃতির কাছে ছুটে যেতাম ।  কিন্তু এখন যেন সেই প্রকৃতিকে ও ধরে ফেলেছি ডিজিটালে । নানা শব্দ , ছবি সব ঘরে বসেই দেখতে চাই নিজেদের গ্যাজেটস দিয়ে । আবার এর জন্য বেড়েছে ট্রাভেল ব্লগিং , তাই তারাও প্রকৃতির কাছে যাচ্ছে কিন্তু দেখছে না , উপভোগ করছে না । ভিডিও , ফটো তুলে আপলোড করে সাবস্ক্রাইব-লাইকের আশায় হাপিত্যেশ করছে । ঠিক কি না ?

মজা

মজা শব্দটি আছে , বদলেছে কেমন করে সেটা পায় যাবে তার রাস্তায় । একটা কিশোর আগেতে মানে এই দশ বছর আগেতেও একটা ঘুড়ি নিয়ে উড়িয়েছে , একা একাই উড়িয়েছে আর মজা পেয়েছে কিন্তু এখন ? এখন সেই শিশু আর ঐরকম খেলতে চায় না , চায় ঘরে বসে কোনো গেম নিয়ে খেলতে , সেলফি স্টিক নিয়ে ফটো তুলতে । ঠিক কি না ?

দূষণ

শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে আমাদের খুব বেশি ভাবতে হতো না । কিন্তু এই দশ বছরে , গাড়ির সংখ্যা বৃদ্ধি , গাছ কেটে ফ্ল্যাট বাড়ি বানানোর ফলে শহরের দূষণ অতিরিক্ত হয়ে আছে । সাথে আছে উৎসবাদিতে বাজি ফাটিয়ে মজা পাবার অশিক্ষা । তাই এখন আমাদের ঘুরতে হচ্ছে মাস্ক পরে আর বয়স্কদের অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে । ঠিক কি না ?

বাঁচানো

কাউকে বাঁচাতে পারা এই কিছুদিন আগে পর্যন্ত আমাদের কাছে একটা মহান কাজ ছিল । কিন্তু দশ বছরে আমাদের মানসিকতা এমন জায়গায় গেছে সেখানে আমরা “সেভ ” করা মানে আমরা জানি শুধু ফটো , গান , ফাইল এইসব । রাস্তার কি আমার পাশের মানুষ মরলো না বাঁচলো , সেই বিষয়ে আমরা উদাসীন । এমনকি সংবাদ পত্রে দেখি , কেউ মরতে বসেছে , সেইসময় তাকে না বাঁচিয়ে লোকে সেটার ফটো তুলতে ব্যস্ত । ঠিক কি না ?

চাকরি

দশ বছর আগে ছিল প্রথমে জোর কদমে পড়াশুনা করে অনেকগুলো ডিগ্রি জোগাড় করো । এরপর চাকরির জন্য উঠেপড়ে লাগো কারণ ডিগ্রি ছাড়া চাকরি পাওয়া যাবে না । কিন্তু এখন , ছোট খাটো  কাজ করেও আগে নিজের অভিজ্ঞতা বাড়াও , ডিগ্রি পরে করলেও হবে । তবে যারা খুব ধনী তাদের কথা আলাদা কারণ এখন টাকা থাকলে তবেই ডিগ্রি কথাটা ধ্রবসত্যে প্রমাণিত হয়ে গেছে । ঠিক কি না ?

বন্ধু তোমায়

অর্কুট, ফেসবুক হওয়ার আগে পর্যন্ত আমরা বন্ধুদের খুব মিস করতাম , তাদের সাথে ছাড়াছাড়ি হবার ব্যাপারে কত আবেগপ্রবণ ও ছিলাম । কিন্তু এখন সেই আবেগ অন্য কিছুতে রূপান্তরিত । বন্ধুদের ছবিতে লাইক করা , মন্তব্য করা , নানা সময়ে শুভেচ্ছা জানানো ইত্যাদি সেই মিস করার আবেগকে কোথায় দূর করে দিয়েছে । ঠিক কি না ?

পড়াশুনা

বাচ্ছাদের পড়াশুনা ব্যাপারটা এখন আর আগের মতো শুধু তাদের ব্যাপার বলে থেমে নেই । এখন প্রতিনিয়ত মা-বাবাকেও কিভাবে সেই কাজে সামিল করা যায় তার নানা উপায় ফেঁদে চলেছে স্কুলগুলো । বাচ্চা স্কুলে খারাপ করলে যে মা-বাবার  ও অপমান সেটা এখন সবাই হাড়েহাড়ে বুঝে গেছে তাই নজরদারি ও তেমনি থাকে । ঠিক কি না ?

খাটো হওয়া

এই জিনিসটা একেবারেই বিশেষজ্ঞদের দাবি , আমি তোমাদের ও জানাচ্ছি । তাঁরা জানাচ্ছেন দশ বছর আগে পর্যন্ত ছেলে-মেয়েরা যে ভাবে বেড়েছে এখন সেভাবে হয় না । কারণ ঘর গুঁজে ট্যাবলেট,মোবাইল নিয়ে বসে থাকার ফলে তাদের দৈহিক বৃদ্ধি কম হচ্ছে এখন । এমনকি ভবিষ্যতে মানুষজনের কুঁজো হয়ে যাবার সম্ভাবনা খুব বেশি । বুঝলে কি না ?

যাইহোক , আপাতত এইসব তফাৎ গুলো নিয়েই লিখে ফেলা গেলো । এর মধ্যে কোনটা ভালো -কোনটা মন্দ তার বিচার তোমাদের হাতেই দিলাম । আমি সবটা লিখে দিলে তোমরা কি ভাববে ! ঠিক কি না ?

About Antara Samanta

Myself is Antara Samanta, a wanna be writer in homemaking style with an idea to embrace the indifference in a classy dynamic way. Antara is passionate about reading,singing and writing-in that way.
View all posts by Antara Samanta →

Leave a Reply